Banglar Kantha/বাংলার কাঁথা

200.00

  • Quantity:

    - +

    Subtotal: Rs. 200
    • Share this product

    Description

    ‘কেহ কেহ নাকি গভীর রাত্রে দেখেছে মাঠের পরে,-- মহা-শূন্যেতে উড়াইছে কেবা নক্সী-কাঁথাটি ধরে;’… জসীমুদ্দিন ‘নকশি কাঁথার মাঠ’ লেখার আগে কাঁথাকে শুধুই কাঁথা বলা হত। ‘নকশি কাঁথা’ শব্দটি এই কবিরই দান। জসীমুদ্দিন তাঁর কবিতায় গ্রাম বাংলার মেয়েদের সঙ্গে কাঁথার এক নিবিড় সম্পর্কের বর্ণনা দিয়েছিলেন, ১৯২০ সালের প্রথম দিকে গিরীশ্চন্দ্র বেদান্ততীর্থ গরীব দুঃখী মানুষের সঙ্গে কাঁথার সম্পর্ক লক্ষ্য করেছেন, আবার বৃহৎ বঙ্গে(১৯৩৫) দীনেশচন্দ্র সেন কাঁথার শৈল্পিক মূল্যের কথা লিখেছেন। এপ্রসঙ্গে পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের সেই বিখ্যাত ‘জিংগল’টির কথা মনে পড়ছে ‘বঙ্গ জীবনের অঙ্গ’—কাঁথা আসলে তাইই। লিখছেন নীলাঞ্জনা ঘোষ।

    Ratings & Reviews
    • Be the first to write a review.

    Related Products